March 5, 2024, 9:42 am

সংবাদ শিরোনাম
শিক্ষক হাজির ২জন শিক্ষার্থীও হাজির ২ জন উলিপুরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন চিলমারীতে এইড-কুমিল্লার ই-কমার্স বিষয়ে সচেতনতা মূলক র‍্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ০৪ সদস্যকে গোপালগঞ্জের সদর থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব কুড়িগ্রামে ব্রহ্মপুত্রের চরের শিশুদের শিক্ষা উপকরণ দিলো বাফলা পটুয়াখালীতে আগুনে পুড়ে গেছে মাছের আড়তসহ ৬ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কুয়াকাটায় পালিত বিশ্ব বন্যপ্রানী দিবস পালিত হয়েছে শার্শায় মরা গরুর মাংস বিক্রির অভিযোগে কসায়সহ দুজনকে জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত ভোলায় ২২ লক্ষ মানুষের জন্য নেই ব্লাড ব্যাংক সুন্দরগঞ্জে মাদক ব্যবসা অবাধে চলছে নেই কোন প্রতিকার

রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পথ খুলে দিক

রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানের পথ খুলে দিক
নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক
 
রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে।
নিউইয়র্কে রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের প্রাক্কালে ঢাকায় অবস্থিত নিরাপত্তা পরিষদের নয় সদস্য দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে গত বুধবার বৈঠকে বসেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
বৈঠকে এ ইস্যুতে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর সমর্থন চাওয়া হলে তাদের পক্ষ থেকে ইতিবাচক সাড়া দেওয়া হয়। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য সংখ্যা ১৫। ঢাকায় ছয়টি দেশের দূতাবাস না থাকায় তাদের এ বৈঠকে ডাকা হয়নি।
বৈঠকে নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য, চীন ও ফ্রান্স এবং চার অস্থায়ী সদস্য মিসর, ইতালি, জাপান ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূতরা যোগ দেন। স্মর্তব্য, বাংলাদেশ নিরাপত্তা পরিষদের সদস্য না হলেও রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আহৃত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বাংলাদেশকে অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ওই বৈঠকে বাংলাদেশের প্রতিনিধি রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া পাঁচ দফা প্রস্তাব উত্থাপন করবেন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের স্থায়ী সদস্যরা ভেটো ক্ষমতার অধিকারী। কোনো প্রস্তাব মনঃপূত না হলে ভেটো ক্ষমতাসম্পন্ন যে কোনো দেশ তা নাকচ করে দিতে পারে। নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ সদস্যের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের অবস্থান বাংলাদেশের পক্ষে। চীন ও রাশিয়া মিয়ানমারের জঙ্গিবাদী তত্পরতা দমনে সে দেশের অবস্থানকে সমর্থন করে।
রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে এ দুই দেশের নমনীয় ভূমিকা বাংলাদেশের জন্য খুবই জরুরি। নিরাপত্তা পরিষদের বিতর্কে মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াতে সব সদস্য একাট্টা হলে তা রোহিঙ্গাদের সসম্মানে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে অবদান রাখবে। চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের যেমন গভীর সম্পর্ক রয়েছে, তেমনি মিয়ানমারের সম্পর্কও ঘনিষ্ঠতর। মিয়ানমারে ওই দুই দেশের বিপুল বিনিয়োগ থাকায় তাদের পক্ষে সরাসরি মিয়ানমারের বিরোধিতা করা সম্ভব নয়। দুই দেশ যাতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভেটো না দেয় তা নিশ্চিত করার জন্য বাংলাদেশ নানামুখী তত্পরতা চালাচ্ছে।   পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে নিরাপত্তা পরিষদভুক্ত দেশগুলোর কূটনীতিকদের আশ্বাসকে এক্ষেত্রে একটি বড় অর্জন হিসেবে দেখা হচ্ছে।
Facebook Comments Box
Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর