May 30, 2024, 8:19 pm

সংবাদ শিরোনাম
রংপুর সিটির তিন মাথায় নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু, ইউপি চেয়ারম্যান ও ভবন মালিকের যোগসাজসে গোপনে লাশ দাফন আদমদীঘির ধান শরিয়তপুরে উদ্ধার; গ্রেপ্তার-২ অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা হতে ০৬ জন পরিবহন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান এলাকা হতে গাঁজা ও বিদেশী পিস্তলসহ কুখ্যাত অস্ত্রধারী মাদক ব্যবসায়ী সাগর’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে ধাক্কায় চালকের মৃত্যু ঘূর্ণিঝড় রেমাল এর প্রভাবে উপকুলের সতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত কুড়িগ্রামে বেবী তরমুজের চাষে তিন মাসে আয় দেড় লাখ টাকা মাঝরাত্রে প্রবাসীর ঘরে ঢুকে স্ত্রীও মা কে ছুরি মেরে পালালো দুর্বৃত্তরা বগুড়ার শিবগঞ্জে জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন: এমদাদুল আহবায়ক রবি সদস্য সচিব গাইবান্ধা প্রেসক্লাব’র কমিটি গঠিত

২৪তম দিনে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন: শেখ হাসিনাকে হত্যাই ছিল ২১ আগস্ট হামলার উদ্দেশ্য

২৪তম দিনে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন: শেখ হাসিনাকে হত্যাই ছিল ২১ আগস্ট হামলার উদ্দেশ্য

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগ আয়োজিত সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে গ্রেনেড হামলার আসামীদের অভিন্ন উদ্দেশ্য ছিল শেখ হাসিনাকে হত্যা করা।

রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি সিনিয়র অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় গতকাল মঙ্গলবার ২৪তম দিনের মতো যুক্তিতর্কে এ তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব শুন্য করতে পরিকল্পিতভাবে ওই পরিচালিত হয়। যুক্তিতর্কে গতকাল মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষ মামলার সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিলকারী কর্মকর্তা আবদুল কাহ্হার আখন্দের (পিডব্লিউও ২২৫) দেয়া জবানবন্দি থেকে যুক্তিতর্ক পেশ করার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রপক্ষে দেয়া ২২৫ জন সাক্ষির জবানবন্দির আলোকে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষ করেন। এরপর আসামীপক্ষে দেয়া সাফাই সাক্ষ্য থেকে যুক্তিতর্ক পেশ শুরু করে রাষ্ট্রপক্ষ। রাজধানীর পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশে স্থাপিত ঢাকার ১ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালতে এ মামলার বিচার চলছে। রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক পেশ অসমাপ্ত অবস্থায় মামলার কার্যক্রম আজ বুধবার পর্যন্ত মুলতবি করা হয়। আদালতের আদেশে আসামীপক্ষকে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তিতর্কে স্বাক্ষী আবদুল কাহ্হার আখন্দের জবানবন্দি উল্লেখ করে জানায়, আবদুল কাহ্হার আখন্দ এ মামলা ২০০৯ সালের ৩ আগস্ট থেকে ২০১১ সালের ২ জুলাই পর্যন্ত ১ বছর ১০ মাস ২৯ দিন সম্পূরক তদন্ত করে চার্জসিট দাখিল করেন। তিনি এ মামলার এজাহার, বিভিন্ন কর্মকর্তার তদন্ত, বিভিন্ন আলামত নষ্ট করার ঘটনা, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিসমূহ পর্যালোচনা করেন। ঘটনা ঘটার সময় পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকার বিষয়ে বিস্তারিত তদন্ত ও পর্যালোচনা করেন। বিভিন্ন সময় মামলার বিভিন্ন কর্মকর্তাদের ভূমিকা পর্যালোচনা করেন। এ মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা ফজলুল কবিরের দাখিল করা ২২ আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র পর্যালোচনা করেন। ২১ আগস্ট ঘটনার পূর্বে অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের সভা, সভাস্থল, জড়িতদের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য উৎঘটান করেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে জঙ্গি নেতা মুফতি হান্নানসহ তার সহযোগীদের পরিচালিত বিভিন্ন তৎপরতার তথ্য উৎঘাটন করেন। প্রকৃত আসামীদের আড়াল করতে নিরীহ জজমিয়া সহ অন্য নিরীহদের মামলায় সম্পৃক্ত করার উদ্দেশ্য উৎঘাটন করা হয়। রাষ্ট্রপক্ষ জানায়, আবদুল কাহ্হার আখন্দ ২১ আগস্ট হামলা সফলে তারেক রহমানের রাজনৈতিক কার্যালয় বনানীর হাওয়া ভবনে অনুষ্ঠিত অপরাধমূলক ষড়যন্ত্রের সভাসহ বিভিন্ন ষড়যন্ত্রমূলক সভার বিস্তারিত তথ্য উৎঘাটন করেন। আসামীদের নির্বিঘেœ পালিয়ে যেতে সহায়তাকারী কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করেন। এ তদন্ত কর্মকর্তা তার তদন্তকালে ১৭ আসামীকে গ্রেফতার করেছেন বলে রাষ্ট্রপক্ষ জানায়। রাষ্ট্রপক্ষ জানায়, পূর্বপরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সিলেটের বিভিন্ন স্থানে এবং ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা পরিচালনা করা হয়। এ রাষ্ট্রকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিনত করা এবং জঙ্গিবাদ প্রতিষ্টিত করার একটা লক্ষ্য ছিল হামলাকারীদের। কেননা শেখ হাসিনা ও তার নেতৃত্বাধীন দল অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও আদর্শে বিশ^াসী। তাই এ আদর্শ ধ্বংশ করে উগ্রবাদ তথা জঙ্গিবাদ প্রতিষ্ঠা করতেই শেখ হাসিনাসহ দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে হত্যার পরিকল্পানা ও হামলা করা হয়। রাষ্ট্রপক্ষ জানায়, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মন্ত্রী, প্রভাবশালী শীর্ষ নেতা, প্রশাসনের প্রভাবশালী শীর্ষ কর্মকর্তাগনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা পরস্পর যোগসাজসে ঘটিয়েছেন। তদন্তে তাদের নাম ও তথ্য-প্রমান বেড়িয়ে এসেছে। সে আলোকে আরো ৩০জনকে সম্পৃক্ত করে মামলায় সম্পূরক অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তিতর্কে আদালততে উদ্দেশ্য করে বলেন, বিচারপ্রার্থী মানুষেরা ন্যায়বিচার প্রাপ্তির জন্য অধীর আগ্রহে রয়েছেন। প্রধান কোঁসুলিকে যুক্তিতর্ক পেশে আরো সহায়তা করছেন আইনজীবী আকরাম উদ্দিন শ্যামল ও ফারহানা রেজা। এ ছাড়াও রাষ্ট্রপক্ষে স্পেশাল পি.পি মো. আবু আব্দুল্লাহ্ ভুঞা, আবুল কালাম আজাদ, মো. আমিনুর রহমান, আবুল হাসনাত, শেখ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, কাজী ইলিয়াসুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে আসামিপক্ষে বিভিন্ন আইনজীবী আদালতে গতকাল মঙ্গলবার উপস্থিত ছিলেন। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় গত ২৩ অক্টোবর থেকে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক শুরু হয়েছে। ২১ আগস্টের ওই নৃশংস হামলায় পৃথক দুটি মামলায় মোট আসামি ৫২ জন। মামলার আসামি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, বিএনপি নেতা সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ২৩ জন কারাগারে রয়েছে। এ মামলায় পুলিশের সাবেক আইজি আশরাফুল হুদা, শহুদুল হক ও খোদাবক্স চৌধুরী, লে.কমান্ডার (অব:) সাইফুল ইসলাম ডিউক এবং মামলার সাবেক তিন তদন্ত কর্মকর্তা- সিআইডি’র সাবেক এসপি রুহুল আমিন, সিআইডি’র সাবেক এএসপি আতিকুর রহমান ও আবদুর রশিদসহ মোট ৮ জন জামিনে রয়েছেন। তারেক রহমান, বিএনপি নেতা হারিছ চৌধুরী, শাহ মোফাজ্জল হোসেন কায়কোবাদ, মেজর জেনারেল (এলপিআর) এটিএম আমিন, লে.কর্নেল (অব.) সাইফুল ইসলাম জোয়ার্দারসহ ১৮ জন এখনো পলাতক। এ ছাড়া ৩ জন আসামি জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, মুফতি হান্নান ও শরীফ সাইদুল আলম বিপুলের অন্য মামলায় মৃত্যুদন্ড কার্যকর হওয়ায় এ মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। পলাতক আসামীদের পক্ষে রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী রয়েছেন। বিএনপি-জামায়াতের জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের এক সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটে। ওই নৃশংস হামলায় ২৪ জন নিহত ও নেতকর্মী-আইনজীবী-সাংবাদিকসহ পাঁচ শতাধিক লোক আহত হয়। নিহতদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের পতœী আইভি রহমান। তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে যান। এতে অল্পের জন্য শেখ হাসিনা প্রাণে বেঁচে গেলেও গ্রেনেডের প্রচন্ড শব্দে তার শ্রবণশক্তিতে আঘাতপ্রাপ্ত হয়।

এদিকে, রাজধানীর গাবতলী এলাকার প্রায় ১শ’টি অবৈধ দোকান ও হকার উচ্ছেদ করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ডিএনসিসি’র নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. সাজিদ আনোয়ারের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত গাবতলী বাস টার্মিনাল এ অভিযান চালায়। অভিযানকালে গাবতলী বাস টার্মিনাল এলাকায় অবৈধভাবে স্থাপিত প্রায় ৫০টি শেড ও সিঁড়ি উচ্ছেদ করা হয়। এ সময় প্রায় ২০ হাজার বর্গফুট জায়গা অবৈধ দখল থেকে মুক্ত করা হয়। অভিযানকালে নির্ধারিত জায়গার অতিরিক্ত জায়গা ব্যবহার করার অপরাধে সিটি করপোরেশন আইন অনুযায়ী ৮টি দোকানের প্রত্যেককে ১৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। ডিএনসিসির অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও ভ্রাম্যমান আদালত অব্যাহত থাকবে বলে সূত্র জানায়।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর