June 21, 2024, 1:49 am

সংবাদ শিরোনাম
সিসিটিভির আওতায় উলিপুরঃ সম্মানিত নাগরিকদের নিরাপত্তায় পুলিশের এই প্রচেষ্টা সরিষাবাড়ীতে ৪ হাজার ব্যক্তির মাঝে এমপির চাল বিতরণ চিলমারীতে পৈ‌ত্রিক সম্প‌তি নি‌য়ে বি‌রো‌ধের জের ধ‌রে প্রায় ১৪ বছরের পুরোনো কবর ভেঙে ফেলার অভিযোগ গাজীপুর কালিয়াকৈর চান্দ্রায় ঈদ যাত্রার যাত্রীদের দুর্ভোগ কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এসেছে বোতলনোজ প্রজাতির মৃত ডলফিন উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আরসার গান কমান্ডার গ্রেফতার ফরিদপুরের নগরকান্দার চাঞ্চল্যকর “ক্লুলেস ডাকাতি” ঘটনার মূলহোতা দুর্ধর্ষ ডাকাত সর্দার রবিজুল শেখ’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ রংপুরের পীরগঞ্জে ইয়াবা, জুয়ারী,ও ওয়ারেন্টের আসামী সহ ৮জনকে আটক করে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ ভূমি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জনসচেতনতা মূলক আলোচনা সভা জৈন্তাপুরে চিকনাগুল বাজারে অবৈধ পশুর হাট, সরকার হারাচ্ছে কোটি টাকার রাজস্ব

দুপুরে খেতে যাওয়ায় প্রাণে বাঁচলেন ২০ শ্রমিক

দুপুরে খেতে যাওয়ায় প্রাণে বাঁচলেন ২০ শ্রমিক

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

ঝিনাইদহ শহরের ধোপাঘাটা নদীর ওপর সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীন জাইকার অর্থায়নে ১২০ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মাণাধীন ব্রিজের দুইটি গার্ডার ভেঙে পড়েছে। এতে অল্পের জন্য রক্ষা পেয়েছেন ২০ শ্রমিক। গতকাল রোববার দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। ব্রিজের গার্ডার ভেঙে পড়ার সময় বিকট শব্দে পুরো এলাকা কেঁপে ওঠে।

ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, জাইকার অর্থায়নে মনিকা লিমিটেড পিডাব্লিউ ০৩ প্যাকেজের আওতায় ব্রিজটি নির্মাণ করা হচ্ছে। দেড় বছর ধরে পাইলিং ও মাটি ভরাটের কাজ শেষে এখন ব্রিজের মূল স্লাবের জন্য নির্মিত গার্ডার রি-প্লেসের কাজ চলছিল। কোম্পানির ম্যাসেঞ্জার ওলিউর রহমান জুয়েল জানান, জগ দিয়ে গার্ডার স্থানান্তরিত করার সময় অসাবধানবশত প্রায় একশ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৮০ টন ওজনের দুইটি গার্ডার নিচে পড়ে ভেঙে যায়। শ্রমিকরা এ সময় দুপুরের খাবার খেতে যাওয়ায় বড় ধরণের কোন ক্ষতি হয়নি। তবে এতে প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে।  এদিকে অভিযোগ উঠেছে, কাজে ত্রুটি থাকার কারণে এই দুর্ঘটনা ঘটেছে। ব্রিজের কাজে ব্যাবহৃত পাইপ ও সার্টারগুলো দীর্ঘদিনের পুরনো ও মরিচা ধরা। প্রায় দেড়শ টন ওজনের দুইটি গার্ডারের ভর সইতে না পারায় সেগুলো পড়ে গেছে।  তবে এ বিষয়ে প্রজেক্ট ম্যানেজার আবদুস সালাম গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে কথা বলতে রাজি হননি। সাইট ইঞ্জিনিয়ার শাহাদত হোসেন জানান, বিষয়টি জেনে বুঝে বলা যাবে। তবে নিশ্চয় কাজে কোন ত্রুটি ছিল।

ঝিনাইদহ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল ইসলাম বলেন, আমরা এ কাজের দেখভাল করছি না। ঢাকা থেকে একটি প্রজেক্টের মাধ্যমে কাজটি হচ্ছে। এই প্রজেক্টের একটি অফিস যশোরে আছে। তাদের সঙ্গে কথা বলুন।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর