February 24, 2024, 7:07 am

সংবাদ শিরোনাম
রাজধানীর ধানমন্ডিতে পুলিশের অভিযানে ২৯০ বোতল বিদেশি মদ উদ্ধার’ এক নারী’সহ গ্রেফতার-২ এবারে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে এলো ৫০ মেট্রিকটন নারিকেল জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন সরিষাবাড়ীতে ফসলের বৃদ্ধিকরণে কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত রংপুরে এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁস, শিক্ষকের কারাদণ্ড ইসলামপুরে অতি দরিদ্র পরিবারের জীবনযাত্রার মান পরিবর্তনে গ্র্যাজুয়েশন সভা অনুষ্ঠিত উলিপুরে সংবাদ প্রচারের পর দোকান ঘর সরিয়ে নিতে নোটিশ দিলেন সহকারী কমিশনার ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানালেন ডিএমপি কমিশনার গংগাচড়া স্মার্ট প্রেসক্লাবের সভাপতি আজমীর, সাধারণ সম্পাদক সাগর কুড়িগ্রামের উলিপুরে ৬ জুয়াড়ী গ্রেফতার

দার্জিলিং বিস্ফোরণ মামলার তদন্তে এনআইএ

দার্জিলিং বিস্ফোরণ মামলার তদন্তে এনআইএ

ডিটেকটিভ আন্তর্জাতিক ডেস্ক

দার্জিলিংয়ে বিস্ফোরণের ঘটনায় করা সব মামলা ও অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনা নিয়ে তদন্তে নামছে ভারতের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ। ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে এনআইএকে সবুজ সংকেত দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। রাজ্য সরকার থেকে জানানো হয়েছেÑএমন কোনো নির্দেশের কথা তারা জানে না। জানা গেছে, পাহাড়ের ছয়টি ‘স্পর্শকাতর’ মামলার তদন্ত করবে এনআইএ।

ভারতের ¯স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে গত রোববার গুরংয়ের সই করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আন্দোলনের সময় গুলিতে মারা যাওয়ার ঘটনাসহ এসআই অমিতাভ মালিকের খুনের ঘটনার সিবিআই তদন্ত দাবি করা হয়েছে। সেই মামলাও এনআইএ তদন্ত করবে বলে।

এনআইএর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, চলতি বছর করা দার্জিলিং সদর থানার ১৮২ নম্বর, লোধানা থানার ৮ নম্বর, সুখিয়াপোখরি থানার ২১ নম্বর, রংলি রংলিয়তের ৪৩ নম্বর, পাতলেবাস এনকাউন্টারের ঘটনায় দায়ের হওয়া ২১৩ নম্বর এবং কালিম্পং থানার ২২৩ নম্বর মামলাগুলির তদন্ত করবে এনআইএ। দরকার হলে অন্য মামলাও এনআইএ হাতে নিতে পারে।

রাজ্য পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পাহাড়ে যে সব মামলায় ইউএপিএ বা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার মতো ধারা দেওয়া হয়েছে, সেক্ষেত্রে মামলাগুলো এনআইএ নিতেই পারে। রাজ্যের কোনো সম্মতি এ ক্ষেত্রে লাগে না। ইতোমধ্যে এনআইএ অফিসারেরা দার্জিলিং পৌঁছেছেন। সিআইডির কাছে মামলাগুলোর ব্যাপারে খোঁজখবর করেছেন। কিন্তু সিআইডি কেন্দ্রীয় সংস্থাকে কোনো এফআইআর দিতে রাজি হয়নি বলেই এনআইএ সূত্রে দাবি করা হয়েছে। তিন দিন আগেই রাজ্য সিআইডির এডিজি রাজেশ কুমারকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

গত ১২ জুন থেকে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার নেতা বিমল গুরংয়ের ডাকে পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্যের দাবিতে দার্জিলিংয়ে একটানা অনির্দিষ্টকাল বনধ শুরু হয়। পরে ২৭ সেপ্টেম্বর ১০৭ দিন বনধ শেষে আনুষ্ঠানিকভাবে সেটি প্রত্যাহার করে নেয় গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা।

এরপর দার্জিলিংয়ে যখন শান্তি ফিরতে শুরু করে, তখনই বিমল গুরং বাহিনীর হামলায় উপপরিদর্শক অমিতাভ মালিক নিহত হন। মামলায় দার্জিলিং পুলিশ বিমল গুরংসহ ২০ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর করে। এর আগেও বনধ চলাকালে খুন, হামলা, যানবাহন, অফিস-আদালত, পঞ্চায়েত দপ্তরে জ¦ালাও পোড়াওসহ বিভিন্ন সহিংস ঘটনায় রাজ্য সরকার একাধিক মামলা করে বিমল গুরংসহ জনমুক্তি মোর্চার একাধিক নেতার বিরুদ্ধে। ১০৭ দিন শেষে দার্জিলিং থেকে অনির্দিষ্টকালের বনধ প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন বিমল গুরং। মোর্চার বিদ্রোহী নেতা বিনয় তামাং এর আগে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে প্রথমে বনধ প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলেও বিমল গুরংয়ের ভয়ে অনেকে বনধ প্রত্যাহার করতে সাহস পায়নি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিমল গুরং ও মদন তামাংয়ের পৃথক ডাকে দার্জিলিংয়ে বনধ প্রত্যাহার হয়। শান্তি আসতে শুরু করে। স্বাভাবিক হতে থাকে দার্জিলিংয়ের জনজীবন।

Facebook Comments Box
Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর