July 25, 2024, 9:00 am

সংবাদ শিরোনাম
বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশের অভিযানে ১০ হাজার ইয়াবাসহ যুবক আটক পার্বতীপুরে নব-নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ভাই চেয়ারম্যানদ্বয়ের সংবর্ধনা রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকা হতে জাল সার্টিফিকেট ও জাল সার্টিফিকেট তৈরীর সরঞ্জামাদিসহ ০২ জন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ র‌্যাব-১০ এর অভিযানে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকা হতে ইয়াবাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কক্সবাজারে ভারী বৃষ্টিপাত পাহাড় ধ্বসে নারী-শিশু নিহত পীরগঞ্জে মসজিদের দোহাই সরকারি খাস জমির গাছ কর্তন পার্বতীপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিক হোসেন এর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন দারুসসালাম লাফনাউট মাদ্রাসার দস্তারবন্দী নিবন্ধন ফরম বিতরণ শুরু পীরগঞ্জে নিখোঁজের একদিন পর শিশু’র লাশ উদ্ধার মাদক মামলায় ১৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত দীর্ঘদিন পলাতক আসামী আলাউদ্দিন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০

কক্সবাজার শহরে যৌতুকের বলি রিয়াজুল জান্নাত

কক্সবাজার শহরে যৌতুকের বলি রিয়াজুল জান্নাত

দিদারুল আলম সিকদার, কক্সবাজার প্রতিনিধি


কক্সবাজার শহরের বালিকা মাদ্রাসা সড়কস্থ এক গৃহবধূ বিয়ের ৪মাসের মাথায় যৌতুকের কারণে নির্মমভাবে খুন হয়েছে। ০৪ অক্টোবর বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নিহত গৃহবধূকে হাসপাতাল কম্পাউন্ডে রেখে স্বামী মাহমুদুল করিম (২৭) পালিয়ে যায়। নিহতের পরিবারের দাবি, বিয়ের পর থেকে যৌতুকের জন্য রিয়াজুল জান্নাতের স্বামী ও তার মা‘ মিলে নির্যাতন চালিয়ে আসছিল। নিহত রিয়াজুল জান্নাত চকরিয়া উপজেলার পূর্বকাকরার পাহাড়তলী এলাকার মো. শফিকুল ইসলামের মেয়ে। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে উপস্থিত হয়। এসময় হাসপাতাল থেকে গৃহবধুর শ্বাশুড়ী মুর্তুজা বেগমকে আটক করে।
প্রত্যেক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, গত ৪মাস পূর্বে কক্সবাজার শহরের বালিকা মাদ্রাসা এলাকার মৃত অছিয়র রহমানের ছেলে মাহমুদুল করিমের সাথে চকরিয়া থানার দক্ষিণ কাকারা পাহাড়তলী শফিকুল ইসলামের কন্যা রিয়াজুল জন্নাত এর ইসলামী শরীয়তের বিধান মতে সামাজিকভাবে বিবাহ হয়। বিবাহের কিছুদিন তাদের দাম্পত্য জীবন সুখে শান্তি অতিবাহিত হয়। যার ফলশ্রুতি ওই গৃহবধূ রিয়াজুল জন্নাত অন্তসত্বা হয়।
নিহতের বাবা শফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার রাতেও আমাকে ফোন করে জানিয়েছিল স্বামীর মারধর ও নির্যাতনের কথা। এর আগেও এক লাখ টাকার জন্য বিভিন্নভাবে নির্যাতন করলে আমি ৫০ হাজার টাকা যোগার করে দেয়। এরপর আজকে সকালে ছেলের মা‘ ফোন করে বলে আমার মেয়ে নাকি ফাঁসিতে ঝুলে আছে। তখন আমি ছুটে আসি। দেখি হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে আমার মেয়ের লাশ।
কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রণজিৎ কুমার বড়ুয়া জানান, আমরা মরদেহটি হাসপাতালে পেয়েছি। নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে দাগ দেখা যাচ্ছে ও গলায় বড় ধরণের দাগ আছে। ময়না তদন্তের পর বিস্তারিত বলা যাবে।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর