July 13, 2024, 3:19 am

সংবাদ শিরোনাম
রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকা হতে জাল সার্টিফিকেট ও জাল সার্টিফিকেট তৈরীর সরঞ্জামাদিসহ ০২ জন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ র‌্যাব-১০ এর অভিযানে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকা হতে ইয়াবাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কক্সবাজারে ভারী বৃষ্টিপাত পাহাড় ধ্বসে নারী-শিশু নিহত পীরগঞ্জে মসজিদের দোহাই সরকারি খাস জমির গাছ কর্তন পার্বতীপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিক হোসেন এর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন দারুসসালাম লাফনাউট মাদ্রাসার দস্তারবন্দী নিবন্ধন ফরম বিতরণ শুরু পীরগঞ্জে নিখোঁজের একদিন পর শিশু’র লাশ উদ্ধার মাদক মামলায় ১৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত দীর্ঘদিন পলাতক আসামী আলাউদ্দিন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ যশোরের মুজিব সড়ক থেকে উদ্ধার হওয়া মরদেহ ঝিকরগাছার আখির মোবাইলে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ডিলিট না করায় কক্সবাজারে বন্ধুকে হত্যা

ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতেই প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে: খন্দকার মোশাররফ

ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতেই প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে: খন্দকার মোশাররফ

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক             

 

 

অবৈধ ক্ষমতা রক্ষা করতেই প্রধান বিচারপতিকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে এক আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন। ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, ২০১৪ সালের নির্বাচনে ১৫৪টি আসনে কোনো প্রর্থী ছিলো না। আমাদের সংবিধানে আছে তিনিই সংসদ সদস্য হবেন যিনি সরাসরি জনগনের ভোটে নির্বাচিত। কিন্তু ১৫৪ জন তো জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয়। আমরা শুনতে পাচ্ছিলাম প্রধান বিচারপতি ছুটি থেকে এসে ১৫৪ জনের অবৈধভাবে নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে দায়ের করা একটি রিটের শুনানী (হিয়ারিং) করবেন। এটা হলে ১৫৪ জন সংসদ সদস্যের অবৈধ হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা ছিলো। এতে সরকারও অবৈধ হয়ে যেত। এজন্যই তাকে জোর করে পদত্যাগ করানো হয়েছে। খন্দকার মোশাররফ বলেন, দেশে এখন আর কোনো গণতন্ত্র নেই। দেশের মানুষের নিরাপত্তা বলে কিছু আর নেই। হত্যা, গুম, খুন, দ্রব্যমূল্যের আকাশ ছোঁয়া দাম—এসব নিয়ে মানুষের জীবন দুর্বিষহ। জনগণ আর আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না, বরং তারা আওয়ামী লীগের কবল থেকে মুক্তি চায়। তারা আওয়ামী লীগের প্রতি ক্ষুব্ধ। আওয়ামী লীগের সময় শেষ। জনগণ প্রস্তুত হয়ে আছে জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ক্ষমতায় দেখতে। খালেদা জিয়া বাংলাদেশের সব থেকে জনপ্রিয় নেত্রীÑএমন দাবি করে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া যতবার ৫টা আসনে নির্বাচন করেছেন প্রতিবার ৫ টাতেই জিতেছেন কিন্তু শেখ হাসিনা সবগুলো আসনে কখনোই জিততে পারেননি। খালেদা জিয়া যখন চিকিৎসা নিয়ে দেশে ফিরলেন, যখন রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজার গেলেন। তখন তার জনপ্রিয়তা কত বেশি তা সবাই দেখেছেন। ৭ নভেম্বর উপলক্ষে আয়োজিত এই আলোচনাসভার আয়োজন করে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষক দল। আলোচনাসভায় কৃষকদলের সাধারণ সম্পাদক এবং বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, জাতীয়তাবাদী কৃষকদলের সহ-সভাপতি সৈয়দ মেহেদি আহমেদ রুমি, এম এ তাহের ও ঢাকা মহানগর কৃষকদলের আহ্বায়ক নাসির হায়দার প্রমূখ। মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল তার বক্তব্যে বলেন, ৭ নভেম্বরকে ম্লান করার জন্য ইউনেস্কোর উদযাপন শুরু হয়েছে। শেখ মুজিবুর রহমান একজন জাতীয় নেতা, আমরা তো সেটা মানি। আমরা তাকে সম্মান করি কিন্তু উনি যে একজন ব্যর্থ রাষ্ট্র পরিচালক ছিলেন একথা আওয়ামী লীগকে মানতে হবে। তা না হলে শেখ মুজিবুর রহমান সারাজীবন আওয়ামী লীগের সম্পদই থাকবেন, জাতীয় সম্পদ হবেন না। তারা বুঝতে পারছেন না যে, একটা জাঁতি শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতীয় মর্যাদা দিতে চায়। তার নিজের মেয়ে শেখ হাসিনাও মনে হয় সেটা চান না। তিনি হয়তো চান না শেখ মুজিবুর রহমানের জনপ্রিয়তা তার জনপ্রিয়তার চেয়ে বেশি হোক।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর