July 13, 2024, 1:51 am

সংবাদ শিরোনাম
রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকা হতে জাল সার্টিফিকেট ও জাল সার্টিফিকেট তৈরীর সরঞ্জামাদিসহ ০২ জন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ র‌্যাব-১০ এর অভিযানে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকা হতে ইয়াবাসহ ০১ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার কক্সবাজারে ভারী বৃষ্টিপাত পাহাড় ধ্বসে নারী-শিশু নিহত পীরগঞ্জে মসজিদের দোহাই সরকারি খাস জমির গাছ কর্তন পার্বতীপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা সিদ্দিক হোসেন এর রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন দারুসসালাম লাফনাউট মাদ্রাসার দস্তারবন্দী নিবন্ধন ফরম বিতরণ শুরু পীরগঞ্জে নিখোঁজের একদিন পর শিশু’র লাশ উদ্ধার মাদক মামলায় ১৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত গ্রেফতারী পরোয়ানাভুক্ত দীর্ঘদিন পলাতক আসামী আলাউদ্দিন’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ যশোরের মুজিব সড়ক থেকে উদ্ধার হওয়া মরদেহ ঝিকরগাছার আখির মোবাইলে আপত্তিকর ছবি ও ভিডিও ডিলিট না করায় কক্সবাজারে বন্ধুকে হত্যা

সাত হাঁড়ি সম্পদের লোভ দেখানো ‘জিনের বাদশা’

সাত হাঁড়ি সম্পদের লোভ দেখানো ‘জিনের বাদশা’

গাইবান্ধায় স্বর্ণালংকারসহ সাড়ে ছয় লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া প্রতারক আটক

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক              

 

গাইবান্ধায় মোবাইলে ফোন করে সাত হাঁড়ি সম্পদ দেওয়ার লোভ দেখিয়ে স্বর্ণালংকারসহ সাড়ে ছয় লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে কথিত ‘জিনের বাদশাকে আটক করা হয়েছে।

গত মঙ্গলবার রাতে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার গন্ধববাড়ি খামার এলাকা থেকে রফিকুল ইসলাম নামের ওই জিনের বাদশাকে আটক করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল। এ সময় তাঁর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নাটোর ডিবি পুলিশের ওসি আবদুল হাই বলেন, রফিকুল ইসলাম নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার পিপরুল গ্রামের আশরাফুল ইসলাম বাবুলের কাছে ফোন করে নিজেকে জিনের বাদশা বলে পরিচয় দেন। পরে প্রতারণার মাধ্যমে বিভিন্ন সময় বাবুলের কাছ থেকে প্রায় ছয় লাখ ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন তিনি। ওসি আরো জানান, প্রতারণার বিষয়টি বুঝতে পেরে রফিকুলের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন বাবুল। অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে রফিকুলকে আটক করা গেলেও তাঁর সহযোগীরা পালিয়ে যায়। পলাতক ব্যক্তিরা হলেন মনোয়ারুল ইসলাম, কানু ও শাহিন। পুলিশের কাছে অভিযোগকারী বাবুল বলেন, একদিন রাতে তাঁর কাছে একটি ফোন আসে। ফোনের অপর প্রান্ত থেকে জিনের বাদশা বলে পরিচয় দেওয়া হয়। ‘আল্লাহ পাকের মাজার থেকে তিনি ফোন করেছেন বলে জানানো হয় বাবুলকে। বাবুল জানান, ফোনে তাঁকে বলা হয়, মাজারে সাত হাঁড়ি সম্পদ রয়েছে। চারটি নিয়ম মানলে বাবুল সেগুলো ভোগ করতে পারবেন। এক. পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তে হবে, দুই. ফকির-মিসকিনদের দান করতে হবে, তিন. গরিবদের ঘৃণা করা যাবে না ও ৪. ‘আল্লাহ পাকের মাজার পাক-পবিত্র রাখতে হবে। ওই চার নিয়ম মানতে রাজি হলে বাবুলের সঙ্গে দেখা করতে যান রফিকুল। তিনি বলেন, মানুষের রূপ নিয়ে দেখা করতে এসেছেন তিনি। এ সময় তিনি বাবুলকে দুটি মুরগি ও একটি জায়নামাজ দেন। এরপর বিভিন্ন সময়ে ফোনের মাধ্যমে মাজারে ফকির-মিসকিনদের খাওয়ানো, হাঁড়ির দলিল করানোর জন্য সৌদি আরবে উট কোরবানি দেওয়াসহ বিভিন্ন কাজের জন্য তাঁর কাছ থেকে স্বর্ণালংকারসহ ছয় লাখ ৫০ হাজার টাকা নেন রফিকুল।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর