May 28, 2024, 7:33 pm

সংবাদ শিরোনাম
আদমদীঘির ধান শরিয়তপুরে উদ্ধার; গ্রেপ্তার-২ অবৈধভাবে চাঁদা উত্তোলনকালে রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা হতে ০৬ জন পরিবহন চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান এলাকা হতে গাঁজা ও বিদেশী পিস্তলসহ কুখ্যাত অস্ত্রধারী মাদক ব্যবসায়ী সাগর’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটির সাথে ধাক্কায় চালকের মৃত্যু ঘূর্ণিঝড় রেমাল এর প্রভাবে উপকুলের সতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত কুড়িগ্রামে বেবী তরমুজের চাষে তিন মাসে আয় দেড় লাখ টাকা মাঝরাত্রে প্রবাসীর ঘরে ঢুকে স্ত্রীও মা কে ছুরি মেরে পালালো দুর্বৃত্তরা বগুড়ার শিবগঞ্জে জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন: এমদাদুল আহবায়ক রবি সদস্য সচিব গাইবান্ধা প্রেসক্লাব’র কমিটি গঠিত প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ কামনা, বাগাতি পাড়ার ভূমিহীন রাবেয়া বেগমের

সাক্ষীর অভাবে হোসেনি দালানে বোমা হামলার বিচার শুরুতে বিলম্ব

সাক্ষীর অভাবে হোসেনি দালানে বোমা হামলার বিচার শুরুতে বিলম্ব

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

পুরান ঢাকার হোসেনি দালানে বোমা হামলা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণের পর পর দুই তারিখে সাক্ষী হাজির হয়নি, যাতে মামলাটিতে অভিযোগ গঠনের তিন মাস পরেও বিচার শুরু হয়নি। ঢাকার অষ্টম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন এ মামলায় গত মঙ্গলবার এবং এর আগে ১৩ অগাস্ট সাক্ষ্য গ্রহণের ধার্য তারিখে মামলার বাদী এসআই জালাল উদ্দিন এবং সাক্ষী হোসেনি দালান রোডের মো. মাজেদকে সমন পাঠানো হয় বলে আদালতের কর্মচারীরা দাবি করেছেন। ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে গত ৩১ মে অভিযোগ গঠনের পর মামলার নথিপত্র বিচারের জন্য এই আদালতে পাঠানো হয়। এদিনও সাক্ষী না আসায় বিচারক আবদুল্লাহ আল মামুন আগামি ২৮ নভেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণের পরবর্তী দিন রেখেছেন। ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী আবদুল্লাহ আবুর কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত মঙ্গলবার মামলার তারিখ থাকার বিষয়ে কেউ তাকে জানায়নি। আদালতের পেশকার মোহাম্মদ আলী বলেন, আমাদের কোনো ত্রুটি নেই। সাক্ষী কেন আসছে না সেটা পুলিশ প্রসিকিউশনের হাজিরা সেলের লোকজন বলতে পারেবে। এ মামলার অভিযোগপত্র জমা দেওয়ার বিষয়েও এর আগে তদন্ত কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অবহলার অভিযোগ ওঠে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকার মহানগর পুলিশের অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন বিভাগের উপকমিশনার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। ২০১৫ সালের ২৩ অক্টোবর তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিকালে হোসেনি দালানে বোমা হামলায় দুজন নিহত ও শতাধিক মানুষ আহত হন। এ ঘটনায় চকবাজার থানায় মামলা করে পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. শফিউদ্দিন শেখ গত বছরের এপ্রিল মাসে অভিযোগপত্র অনুমোদনের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠান। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর তা গত বছরের অক্টোবর মাসে বিচারিক আদালতে আসে। মামলায় অভিযুক্ত জেএমবির ১৩ সদস্যের মধ্যে ১০ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযানের সময় তিন জঙ্গি ক্রসফায়ারে মারা যান। গ্রেফতারদের মধ্যে ওমর ফারুক ওরফে মানিক, শাহ জালাল, হাফেজ আহসান উল্লাহ মাহমুদ ও চাঁন মিয়া গত বছরের ১৫ মার্চ থেকে ২৬ মে’র মধ্যে বিভিন্ন সময় জামিন পান। বাকি ছয় আসামি কারাগারে আছে। আসামিদের তিনজন ওই হামলায় দোষ স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। জঙ্গি হামলার এই মামলায় সাক্ষী হাজির না হওয়ায় অসন্তোষ জানিয়ে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আমিনুল গণী টিটো বলেন, প্রত্যেকটি হত্যারই দ্রুত বিচার হওয়া উচিৎ। আর জঙ্গি আক্রমণের এসব মামলার বিচার দ্রুত শেষ হওয়া আরও বেশি জরুরি। দুলাল মিত্রসহ আরও কয়েকজন আইনজীবীও একই কথা বলেন।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর