June 21, 2024, 1:40 am

সংবাদ শিরোনাম
সিসিটিভির আওতায় উলিপুরঃ সম্মানিত নাগরিকদের নিরাপত্তায় পুলিশের এই প্রচেষ্টা সরিষাবাড়ীতে ৪ হাজার ব্যক্তির মাঝে এমপির চাল বিতরণ চিলমারীতে পৈ‌ত্রিক সম্প‌তি নি‌য়ে বি‌রো‌ধের জের ধ‌রে প্রায় ১৪ বছরের পুরোনো কবর ভেঙে ফেলার অভিযোগ গাজীপুর কালিয়াকৈর চান্দ্রায় ঈদ যাত্রার যাত্রীদের দুর্ভোগ কুয়াকাটা সৈকতে ভেসে এসেছে বোতলনোজ প্রজাতির মৃত ডলফিন উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আরসার গান কমান্ডার গ্রেফতার ফরিদপুরের নগরকান্দার চাঞ্চল্যকর “ক্লুলেস ডাকাতি” ঘটনার মূলহোতা দুর্ধর্ষ ডাকাত সর্দার রবিজুল শেখ’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১০ রংপুরের পীরগঞ্জে ইয়াবা, জুয়ারী,ও ওয়ারেন্টের আসামী সহ ৮জনকে আটক করে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ ভূমি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে জনসচেতনতা মূলক আলোচনা সভা জৈন্তাপুরে চিকনাগুল বাজারে অবৈধ পশুর হাট, সরকার হারাচ্ছে কোটি টাকার রাজস্ব

ঠাকুরগাঁওয়ে স্বামীকে হত্যার পর থানায় ফোন করে স্ত্রীর আত্মসমর্পণ

ঠাকুরগাঁওয়ে স্বামীকে হত্যার পর থানায় ফোন করে স্ত্রীর আত্মসমর্পণ

ডিটেকটিভ নিউজ ডেস্ক

পারিবারিক বিরোধের জেরে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলায় স্বামীকে ‘কুপিয়ে হত্যার’ পর পুলিশকে ফোন করেছে তারই স্ত্রী। গতকাল সোমবার রাত ৩টার দিকে উপজেলার বালিয়া ইউনিয়নের ডারাবাড়ি গ্রামে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে বলে জানান ঠাকুরগাঁও সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চিত্ত রঞ্জন রায়। নিহত স্বামী শরিফুল ইসলাম (৪০) বালিয়া ইউনিয়নের কুমারপুর গ্রামের নবিবর রহমানের ছেলে। এ ঘটনায় বালিয়া ইউনিয়নের বগুড়া বস্তি গ্রামের মজিবর রহমানের মেয়ে ও নিহত শরিফুল ইসলামের তৃতীয় স্ত্রী মালেকা বেগমকে (২৮) আটক করেছে পুলিশ। পুলিশ পরিদর্শক চিত্ত রঞ্জন বলেন, রাত ৩টা ৪৫ মিনিটে তৃতীয় স্ত্রী মালেকা বেগম সদর থানার এসআই ভুষণ চন্দ্র বর্মনকে ফোন করে জানান সে তার স্বামী শরিফুল ইসলামকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্যই ওই নারীর ফোন থেকে বাড়ির মালিক শফিকুল ইসলামের সাথে কথা বলা হয়, এরপর তিনিও হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করেন এবং তৃতীয় স্ত্রী মালেকা বেগমকে আটক করা হয় বলে জানান তিনি। এদিকে থানায় আটক মালেকা বেগমের সাথে কথা বলা হলে তিনি বলেন, আমার স্বামী শরিফুল ইসলাম আমাকে হত্যার চেষ্টা করে; আমি প্রাণ বাঁচাতে গেলে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে। পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ পরিদর্শক চিত্ত রঞ্জন আরও জানান, ২০০৬ সালে পারিবারিকভাবে শরিফা বেগম নামে এক নারীকে বিয়ে করেন শরিফুল ইসলাম। এরপর ২০০৭ সালে ওই নারীর মৃত্যু হয়। এরপর ২০০৮ সালে দ্বিতীয়বার ঝরণা বেগম নামে আরেক নারীকে বিয়ে করেন শরিফুল ইসলাম। অপরদিকে ২০১২ সালে প্রতিবেশী বগুড়া বস্তি গ্রামের বাসিন্দা মালেকা বেগমের সাথে শরিফুল ইসলামের ‘প্রেমের সম্পর্কে বিয়ে হয়।’ এ নিয়ে দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্ত্রীর মাঝে বিরোধ শুরু হয়। এর জেরে দ্বিতীয় স্ত্রী ঝরণা বেগম নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে আদালতে স্বামীসহ মালেকার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন এবং তৃতীয় স্ত্রী মালেকা বেগমও একই আইনে স্বামীসহ দ্বিতীয় স্ত্রী ঝরণার বিরুদ্ধে পাল্টা আরেকটি মামলা দায়ের করেন বলে জানান তিনি। মামলা হওয়ার পর থেকেই তাদের সংসারে বিরোধ চলছিল উল্লেখ করে চিত্ত রঞ্জন রায় বলেন, ডারাবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা প্রতিবেশী মামা শফিকুল ইসলামের বাড়িতে প্রায় এক মাস ধরে ভাড়া থাকতেন মালেকা বেগম। গতকাল সোমবার দিবাগত রাতে ওই বাড়িতে স্বামী শরিফুল ইসলাম আসেন। এরপর তৃতীয় স্ত্রী মালেকা বেগমের সাথে তার কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে মালেকা বেগম তার স্বামীকে বসিলা দিয়ে মাথায় কুপিয়ে হত্যা করেন। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে এবং মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানায় পুলিশ।

Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর