,

শিরোনাম
রংপুরের পীরগঞ্জে খালাস পীর নামক স্থানে মোটরসাইকেল শোরুমে অগ্নিকান্ড। সরিষাবাড়িতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নদী পারাপার কুড়িগ্রামে ইউএনও’র গাড়ীর সাথে অটো রিকসার সংঘর্ষে আহত ৮  জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মীর ইকবালকে বিজয়ী করতে চেয়ারম্যান ময়নার আহবান! রংপুর বিভাগীয় কমিশনারের পূজামণ্ডপ পরিদর্শন মেট্রোরেলের কোচ ও ইন্জিন খালাস শুরু, সাথে সাথেই নদী পথে তা যাচ্ছে দিয়াবাড়ী মেট্রোরেলের ডিপোতে কুড়িগ্রামের এনআইডি জালিয়াতি করে স্ত্রীকে বোন বানানো আনিছুর গ্রেফতার সারিয়াকান্দিতে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় এসএসসি পরীক্ষার্থীনী গুরুতর আহত প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে সরিষাবাড়ীতে নৌকা বাইচ প্রতিযোগীতা উন্নয়ন পাগল সংসদ সদস্য মোঃ শাহে আলম

ষড়যন্ত্রকারীরা আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে

অনলাইন ডেস্কঃ

২০১৪-২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে যারা ষড়যন্ত্র করেছে তারাই আবার এখন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে সক্রিয় উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকালে গণভবনে বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির নবনির্বাচিত বোর্ড সদস্যদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের সময় তিনি এ-কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসায় তাকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র জোরদার করা হচ্ছে। এসময় তিনি আরো বলেন, দুর্যোগ চতুর্দিক দিয়ে আসবে এবং আসছে। একদিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ অপর দিকে মনুষ্য সৃষ্ট দুর্যোগ। তাই এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি ফেলে রাখা যাবেনা। উৎপাদন বাড়ানোর মাধ্যমে নিজের ব্যবস্থা নিজেকেই করে রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রক্ষমতাকে ভোগের নয়, দেশসেবার সুযোগ হিসেবে দেখে। আর এ জন্যেই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে দেশ ও দেশের মানুষের উন্নতি হয়। কাজেই যত চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র হোক না কেন, দেশের অগ্রগতি কেউ থামাতে পারবে না।

এদিকে, বর্তমান বিশ্ববাস্তবতায় দেশবাসীকে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার তাগিদ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি করোনাভাইরাস এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রেক্ষাপটে স্যাংশন ও পাল্টা স্যাংশনকে কেন্দ্র করে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে দেশের প্রতি ইঞ্চি জমিকে কাজে লাগানোর মাধ্যমে উৎপাদন বৃদ্ধি এবং কৃচ্ছতা সাধনের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, এই স্যাংশনের ফলেই প্রতিটি জিনিষের দাম বাড়ছে এবং আমি জানি না কারা লাভবান হচ্ছে এই যুদ্ধে। লাভবান হচ্ছে অস্ত্র প্রস্তুত ও সরবরাহকারীরা। আর মরছে সাধারণ মানুষ, ছোট্ট শিশু থেকে শুরু করে সাধারণের আজকে কি মানবেতর জীবন। সেটাই সবথেকে দুঃখজনক।

এছাড়া এসময় শেখ হাসিনা দুর্যোগকালে রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মকে মানবতার সেবায় সম্পৃক্ত করার উদাত্ত্ব আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তৃতায় ১৫ আগস্টের দুঃসহ স্মৃতিচারণ করে বিস্ময় প্রকাশ কওে বলেন, যে জাতির জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সারাটি জীবন উৎসর্গ করেছিলেন, সেই বাঙ্গালি হয়ে কিভাবে ঘাতকরা জাতির পিতার বুকে গুলি চালিয়েছিল!

জাতির পিতার খুনীদের এক সময় তাদের ধানমন্ডির বাসায় বাসায় নিয়মিত যাতায়াত ছিল উল্লেখ করে জাতির পিতার কন্যা বলেন, খুনি নূর, ডালিম, জিয়াউর রহমান ও খন্দকার মোস্তাক প্রায়ই ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাসায় আসত।

তিনি বলেন, তারা আমার বাবা, মা, আমার পরিবারের বেশিরভাগ সদস্য এবং অন্যান্য নিকটাত্মীয়দের হত্যা করেছে। এই হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে তারা দেশ ও এর জনগণের জন্য কোনো কল্যাণ করতে পারেনি, বরং গণমানুষের ভাগ্য অন্ধকার যুগে নিক্ষিপ্ত হয়েছে।

আবেগ জড়িত কন্ঠে তিনি বলেন, জাতির পিতা এদেশে রেডক্রস সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন মানবতার কল্যাণে সেবা করার জন্য, ‘৭৫-এ জাতির পিতাকে নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করার পর সেই রেডক্রসেরই এক টুকরো কাপড়কে কাফন বানিয়ে তাকে দাফন করা হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের পুরনো মর্যাদা ফিরিয়ে আনাসহ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটিকে আধুনিকীকরণের একটি পরিকল্পনা প্রণয়নের নির্দেশনা প্রদান করেন।

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ