December 8, 2022, 1:57 pm

সংবাদ শিরোনাম
ভুল চিকিৎসায় শিশু মাইশাকে হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে কুড়িগ্রামে মানববন্ধন রংপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষ থেকে নবাগত জেলা প্রশাসককে ফুলেল শুভেচছা জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্যই আমার সংগ্রাম: প্রধানমন্ত্রী নয়াপল্টনে বিএনপি সমাবেশ করলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কড়া বার্তা সোশ্যাল মিডিয়ায় আওয়ামী লীগ বিরোধী অপপ্রচারের যথাযথ জবাব দিতে হবে : ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রী বিতর্কে সিলেটের পুলিশ উলিপুরে ছেলের সাথে অভিমান করে মায়ের আত্মহত্যা ইসলামপুর হানাদার মুক্ত দিবস আজ স্ত্রী ও তার সহযোগীদের হাত থেকে বাঁচতে চায় স্বামী ঘোড়াঘাটে সাংবাদিকের বাড়ীতে গভির রাতে সন্ত্রাসী হামলা ও লুটপাট

রংপুর গঙ্গাচরার খতিগ্রস্ত ২৪ পরিবার পেলো ‘প্রান্তিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’ এর সহায়তা

রংপুর ব্যুরো

বুধবার ৫ অক্টোবর গঙ্গাচরা উপজেলার লক্ষীটেরা ইউনিয়নের ইসলি গ্রামে তিস্তা নদীভাঙ্গণে ক্ষতিগ্রস্ত এসব পরিবারকে ছাগল,হাঁস ও অর্থ সহায়তা দেন প্রান্তিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এর সভাপতি ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়,রংপুর এর ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. রাফিউল আজম খান নিশার। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড.আজিজুর রহমান ও স্থানীয় জননেতা নুরুল ইসলামসহ প্রমুখ।

প্রান্তিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ জানিয়েছে, দেশের প্রান্তিক এরিয়ার জনগণের উন্নয়ন প্রকল্পে কাজ করে থাকেন এই সংগঠনটি,তারই ধারাবাহিকতায় আমেরিকায় বাংলাদেশি প্রবাসীদের সংগঠন  ‘স্যাকরামেন্টো এরিয়া আমেরিকান বাংলাদেশি(সাবা)’ এর অর্থায়নে তিস্তা পাড়ের ইসলি গ্রামের ২৪ টি পরিবারকে সহায়তা প্রদান করেন তারা।
সহায়তা অনুষ্ঠানে তিস্তার নদী ভাঙ্গণের ফলে বসতভিটা বিলীন ২৪ টি পরিবারের মাঝে ২১ টি পরিবারকে ছাগল প্রদান করা হয় ও ২ টি পরিবারকে হাঁস পালনের জন্য হাঁস প্রদান করা হয় এবং একটি পরিবারকে ক্ষুদ্র ব্যবসায় বিনিয়োগের জন্য অর্থপ্রদান ও অনুরুপ সহায়তা করা হয়।যার ফলে ২৪ টি পরিবারের প্রায় শতাধিক মানুষ এ সহায়তায় উপকৃত হয়।
আমেরিকান প্রবাসীদের নিয়ে গঠিত স্যাকরামেন্টো এরিয়া আমেরিকান বাংলাদেশি(সাবা)’র প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের উন্নয়ন প্রকল্পে বিভিন্ন ধরণের সহযোগিতা করে আসছে।তারই ধারাবাহিকতায় তিস্তার এসব পরিবারকে সহায়তা প্রদানে অর্থায়ন করে এবং প্রান্তিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত করে।
ড.রাফিউল আজম খান নিশার বলেন, তিস্তার নদীভাঙ্গণে প্রতিবছরই হাজার হাজার  মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়,তাদের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নয়নেই প্রান্তিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ’এর এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা।
ড. আজিজুর রহমান বলেন, আমরা বরারবই প্রান্তিক মানুষের উন্নয়নে কাজ করতে চেষ্টা করেছি,এইধরণের সহযোগিতায় মানুষ সামান্য উপকৃত হলেও আমাদের এই চেষ্টা সার্থক হবে।
সুবিধাভোগী এক পরিবারের সদস্য জানান,আমাদের অনেক কষ্ট করে জীবন পার করতে হয়;এই সংগঠন থেকে সহায়তা পেয়ে আজ অনেক খুশি লাগছে;এই সহায়তা পেয়ে আমরা অনেক উপকৃত হলাম।
স্থানীয় জননেতা নুরুল ইসলাম বলেন,আমাদের এলাকায় এই অঞ্চলের মানুষ সবসময়ই দারিদ্রের সাথে লড়াই করে জীবনযাপন করছে,এই সহায়তায় তাদের অনেক উপকার হলো;সংগঠনটির সর্বাত্মক উন্নয়ন কামনা করেন।

Facebook Comments Box
Share Button

     এ জাতীয় আরো খবর