November 30, 2021, 4:46 pm

শিরোনাম :
হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন ॥ ৪টি নৌকা এবং ৪টিতে স্বতন্ত্র ও বিদ্রোহী প্রার্থীর জয়। রাজধানীর শ্যামপুর এলাকা হতে ০৮ কেজি গাঁজাসহ ০৩ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভাবে সম্পন্ন হয়েছে। ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইডিইবি) ৫১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন। প্রান্তিক শিশুদের মানসম্পন্ন শিক্ষায় ৩ কোটি ৪৭ লাখ ডলার অনুদান দিয়েছে ইউনিসেফ। এমপিওভুক্তির যোগ্য সরকারি স্বীকৃতিপ্রাপ্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা সাড়ে আট হাজার। স্বেচ্ছাসেবীর অভাবে “পথশিশু সেবা সংগঠন ” এর রাস্তায় সেবা দেওয়ার কার্যক্রম কঠিন হয়ে যাচ্ছে। শরীয়তপুরে গোসাইরহাট উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন গ্রহনের লক্ষ্যে রিটার্নিং অফিসারদের সর্বশেষ প্রস্ততি সম্পন্ন। প্রিজাইডিং আফিসারদের ভোট কেন্দ্রে গমনের প্রস্তুতি আমরা চাই ফেয়ার নির্বাচন রংপুরে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু হবিগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিদ্রোহী হওয়ায় ২৫ নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করল আওয়ামী লীগ -রাজধানীর কদমতলী এলাক হতে ১৩,৬০৯ পিস বিক্রয় নিষিদ্ধ সরকারী ঔষধসহ ০১ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। ভোলা বোরহানউদ্দিনে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩৮ জন মনোনয়ন পত্র দাখিল নাগরপুরে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে হামলা গুলিবর্ষন নিহত ১ গুলিবিদ্ধসহ আহত ২ বেনাপোলে ফেনসিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ঠাকুরগাঁওয়ে বর্ণিল আয়োজনে ওয়ার্ল্ড ভিশনের ৫০ বছর পূর্তি উদযাপন বেনাপোলে ১০ টি বোমা- দুই হাজার বোমার সরঞ্জাম সহ আটক-৪ হল্যান্ডের বন্দরনগরী রটারডামে লকডাউনের বিরুদ্ধে পুলিশের সাথে জনতার সংঘর্ষ চাঁদপুরে গণঅধিকার পরিষদের প্রতিনিধি সভা এবং আনন্দ শোভাযাত্রা লালপুরে চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে বীজ ও সার বিতরণ নিখোঁজের ৩দিন পর সেফটি টেংকি থেকে নুসরাতের লাশ উদ্ধার

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে ১৫টি ঘরের মধ্যে ৯টি ঘরই পেয়েছে স্বচ্ছলরা

Spread the love

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ

 

 

দিনাজপুর বীরগঞ্জ উপজেলার ৮নং ভোগনগর ইউপি’র ২টি আশ্রয়ন প্রকল্পে প্রধানমন্ত্রীর উপহার ৭৫টি ঘর পেয়ে খুশি উপকারভোগীরা। তবে সেনাবাহিনী কর্তৃক নির্মিত ১৫ ঘর বরাদ্দ নিয়ে চলছে স্বজন-প্রীতি। ১৫ ঘরের মধ্যে ৯টি পেয়েছেন স্বচ্ছলরা।

সরেজমিন পরিদর্শনে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর উপহার ২টি আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় দিনাজপুর-১ আসনের সাংসদ মনোরঞ্জনশীল গোপাল এর নির্দেশনায় বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সাবেক সহকারী (ভূমি) কর্মকর্তা ও তহসিলদার সাইদুর রহমানের সহযোগিতায় একই ইউপির রতিনাথপুর গ্রামে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর প্রথম পর্যায়ে ৪৬টি অসহায় হিন্দু পরিবারকে ঘর বরাদ্দ দেওয়া হয়।

এ প্রকল্পের ভূমিহীন উপকারভোগী রবীন্দ্রনাথ ও আদুরী বালা জানান, ঘর পেয়ে তারা খুশি। প্রকল্পের দুই শতক জমির কাগজ পেতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, বীরগঞ্জ, সাবেক সহকারী (ভূমি), তহশীলদার সাইদুর রহমান ও সম্ভাব্য চেয়ারম্যান পদ প্রার্থী রাজিউর রহমান রাজু সহযোগিতা করেছেন এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে তাদের নামে বন্দোবস্ত সহ খারিজ, ডিসিআর এর প্রত্যেকটি পরিবারের জন্য পৃথক পৃথক ফাইল তৈরী করে তাদের হাতে তুলে দিয়ে উদ্বোধন করেন।

একই ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় ২৯টি প্িরবার এর আওতায় ঘর পেয়েছে।  ২৯টি পরিবারের খাস জমি বন্দোবস্ত সহ তাদের নামে খারিজ, ডিসিআর সহ পৃথক পৃথক ফাইল তৈরী করে আনুষ্ঠানিকভাবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সাবেক সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং বর্তমান চেয়ারম্যান বদিউজ্জামান পান্না সহ সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিটি পরিবারের হাতে ঘরের কাগজপত্রসহ ফাইল তুলে দিয়ে উদ্বোধন করেন এবং ঘরে প্রবেশ করিয়ে দেন। এই প্রকল্পে আশ্রয় পাওয়া প্রায় ৫-৬ টি পরিবার রয়েছে যারা মাদকদ্রব্য বেচা-কেনা করেন,সেবনও করেন। বেশীর ভাগ ঘর ছিলো তালাবদ্ধ,লোক না থাকার মত।

কিন্তু সেনাবাহিনী কর্তৃক নির্মিত প্রকল্প-৩ এর আওতায় ১৫টি ঘরের মধ্যে চেয়ারম্যানসহ মহিলা ইউপি সদস্য লিপি আরা ১৩টি ঘরে লোকজনকে কোন ধরনের  কাগজপত্র ছাড়াই ঘরে তুলে দেন। বাকী ২টি পরিবার ভিক্ষক ছবিরন বেগম ও রুবেলের স্ত্রীকে বসবাসের সুযোগ করে দেন তহসিলদার ও স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতারা। কিন্তু মহিলা ইউপি সদস্য লিপি আরা জানতে পেরে ঐ দু’টি অসহায় পরিবারকে বের করে দিয়ে তালা লাগিয়ে দেন। অসহায় পরিবার দু’টি স্থানীয় আওয়ামীলীগের সেক্রেটারীসহ আরও অনেক এলাকাবাসীর আশ্রয় নেন এবং তারা তাদের কথা শুনে তালা ভেঙ্গে আবারও তাদেরকে ঘরে প্রবেশ করান। এই ১৫ টি ঘরে যারা আশ্রয় পেয়েছেন তারা জানে না কবে তারা ঘর বরাদ্দের কাগজপত্র পাবেন। তবে ১৫টি ঘরের ৯টি পেয়েছেন স্বচ্ছলরা। যাদের আরো বাড়ি আছে। সরজমিনে বেশীরভাগ বাড়ী সামান্য কিছু রেখে দখল ধরে রাখার মত করে রাখা হয়েছে। বসবাস তাদের অনত্র। প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন  এলাকার মসজিদ কমিটি সদস্য আলহাজ আব্দুস সাত্তার। তিনি জানান,মসজিদ এর পাশে ১ জন ভূমিহীন মোছাঃ ইসি (৭০), স্বামী- মৃত খজি মোহাম্মদ দীর্ঘ অনেক বছর ধরে অন্যের জমিতে অতি কষ্টে সন্তান নিয়ে থাকে। অথচ তাকে ঘর না দিয়ে ৯টি স্বচ্ছল পরিবারকে ঘর দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য যে, প্রকল্প-২ এর আওতায় ২৯টি ঘর এর এক উপকারভোগী ১টি ঘর পেলেও তিনি আরও অতিরিক্ত দুটি ঘর ১টি গোয়ালঘর তুলেছেন। প্রায় ৬ শতক জায়গা দখল করে রেখেছেন তিনি।

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ