January 17, 2022, 8:57 am

শিরোনাম :
মোংলা-ঘোষিয়াখালী চ্যানেলের নাব্যতা রক্ষায় খননকৃত মাটি ফেলতে জমি অধিগ্রহণই ভরসা ঝালকাঠিতে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় বৃদ্ধা খুন ! ছেলেকে স্কুলে ভর্তি করাতে এসে বাবা হলেন লাশ! বরিশালে বাবুগঞ্জে ওসি’র তদারতিতে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে গৃহবধূ মরিয়ম হত্যার আসামী গ্রেপ্তার সিলেটের পুলিশ কমিশনার নিশারুল আরিফের সফল কার্যক্রম! র‌্যাব-১০ এর অভিযানে ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকা হতে দেশীয় অস্ত্র ও ইয়াবাসহ ডাকাত দলের ০৭ সদস্য গ্রেফতার মৌলভীবাজার গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে বিপুল পরিমাণ গাঁজাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার সুন্দরগঞ্জে এমজেবি-জেজেবি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মানববন্ধন শশুরের আত্মহত্যায় প্ররোচিত মামলায় জামাই আটক কুলাউড়া সরকারি কলেজের শিক্ষার পরিবেশের উন্নয়নে কাজ করে যাব’- মোহাম্মদ আবু জাফর রাজু হিলিতে ভিওআইপি ব্যবসা করার অপরাধে আটক-১ ইয়ুথনেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস জাফলং ইউনিটের জলবায়ু ধর্মঘট জনবান্ধব ইউএনও’র কর্মপরিকল্পনায় বদলে গেছে ‘তানোর’ হিলিতে ভিওআইপি ব্যবসা করার অপরাধে আটক-১ মাদ্রাসার প্রভাষকের উপর অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন সড়ক পারাপারে বিদ্যালয়ের সম্মুখে জেব্রা ক্রসিং দেয়ার দাবি শিক্ষার্থীদের কুড়িগ্রামে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বেড সংখ্যার ৫ গুণ রোগী কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের সকল শিক্ষার্থীদের করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা বাধ্যতামূলক

১১ বছরেও বিচার পায়নি ফেলানীর পরিবার

Spread the love

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

 

 

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্তে বিএসএফের হাতে নাগেশ্বরীর উপজেলার  কিশোরী ফেলানী হত্যার ১১ বছরপূর্তি আজ শুক্রবার ( ৭ জানুয়ারী)।কিন্তু আজও কাঙ্ক্ষিত বিচার পায়নি পরিবার।  ১১ তম মৃত্যুবার্ষিকী। পারিবারিকভাবে আয়োজন করা হয়েছে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল।

 

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ৭ জানুয়ারি ফুলবাড়ী উপজেলার উত্তর অনন্তপুর সীমান্তে ৯৪৭নং আন্তর্জাতিক ৩নং সাব-পিলারের পাশ দিয়ে মই বেয়ে কাঁটাতার ডিঙ্গিয়ে বাবার সঙ্গে দেশে ফিরছিল ফেলানী। এ সময় টহলরত চৌধুরীহাট ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষ তাকে গুলি করে। এতে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর পর তার লাশ কাঁটাতারে ঝুলতে থাকে; যা বিশ্ববিবেককে নাড়া দেয়।২০১৩ সালের ১৩ আগস্ট কোচবিহার জেলার বিএসএফের ১৮১ সদর দপ্তরে স্থাপিত জেনারেল সিকিউরিটি ফোর্সেস কোর্টে ফেলানী হত্যার বিচারকার্য শুরু হয়। ৫ সেপ্টেম্বর অভিযুক্ত বিএসএফ সদস্য অমিয় ঘোষকে নির্দোষ ঘোষণা করে। রায় প্রত্যাখ্যান করে ১১ সেপ্টেম্বর ফেলানীর বাবা ভারতীয় হাইকমিশনের মাধ্যমে সে দেশের সরকারকে ন্যায়বিচারের আশায় পত্র দেন। আবারও ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর পুনঃবিচার কার্যক্রম শুরু হলেও বিভিন্ন কারণে তা একাধিকবার স্থগিত হয়।এছাড়াও ২০১৩ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর ফেলানী হত্যা ঘটনায় স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ বিচার এবং ক্ষতিপূরণ আদায়ে ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম প্রথম ও বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপ্রধান অ্যাডভোকেট সালমা আলী দ্বিতীয় বাদী হয়ে আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের (ইউনিয়ন অব ইন্ডিয়া) সচিব এবং বিএসএফের মহাপরিচালককে বিবাদী করে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট নয়াদিল্লিতে ভারতীয় সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩২ অনুযায়ী একটি ফৌজদারী মামলা করেন। তারা ২০১৫ সালের ২১ জুলাই ফেলানীর বাবার জন্য অন্তর্বর্তীকালীন ক্ষতিপূরণ চেয়ে আরও একটি আবেদন করেন।এ বিষয়ে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপ্রধান মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট সালমা আলী মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি  জানান, এখন পর্যন্ত পরিবারের ক্ষতিপূরণসহ স্বচ্ছ বিচার না পাওয়ায় ওই মামলার একজন বাদী হিসেবে আমি দু:খ প্রকাশ করছি। আশা করছি আমরা কাঙ্ক্ষিত বিচার পাব।

 

এ ছাড়াও ২০১৫ সালে আইন ও সালিশ কেন্দ্র এবং ভারতের মানবাধিকার সুরক্ষা মঞ্চ আরও একটি ক্ষতিপূরণ মামলা করে। ৩১ আগস্ট ভারতের জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সে দেশের সরকারকে ফেলানীর পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে পাঁচ লাখ রুপি প্রদানের অনুরোধ করেন। এর জবাবে সেদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলামকে দায়ী করে বক্তব্য দেয়।

 

এরপর ২০১৬ এবং ১৭ সালে কয়েক দফা শুনানি পিছিয়ে যায়। পরে ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি শুনানির দিন ধার্য হলেও শুনানি হয়নি এখনো।

 

ফেলানী হত্যা মামলার বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের সদস্য মানবাধিকার কর্মী, কুড়িগ্রাম জেলা জজকোর্ট পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আব্রাহাম লিংকন বলেন, করোনায় ভার্চুয়ালি চলছে ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের কার্যক্রম। ফলে ফেলানী হত্যা মামলার শুনানি হচ্ছে না। আমরা চাই ভার্চুয়ালি শুনানি হলেও দুই দেশের সম্পর্ক আরও জোরদার হবে। মামলাটির দ্রুত নিষ্পত্তি হলে তা উভয় রাষ্ট্রের জন্য মঙ্গলজনক।

ফেলানীর বাবা নুরুল ইসলাম ও মা জাহানারা বেগম বলেন, ‘মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে মানবাধিকার সংস্থাসহ বহুজনের কাছে গিয়েছি, কিন্তু ১১ বছরেও কাঙ্ক্ষিত বিচার পাইনি

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ