September 26, 2021, 10:58 pm

শিরোনাম :
মানবিক বিপর্যয়ের মুখে মিয়ানমার ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩১ মৃত্যু নেত্রকোণার কেন্দুয়ায় প্রেমের স্বীকৃত না পেয়ে নিজের গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন পুঠিয়া থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার ১৫ ৪১ বছর পর শার্শার ৮ জালিয়াতের বিরুদ্ধে যশোর জেলা প্রশাসকের মামলা বিনামূল্যের মাস্ক কিনতে হয়েছে টাকা দিয়ে আটপাড়া উপজেলা প্রশাসনের কাছ থেকে ভারতে পাচার হওয়া দুুই তরুুনীকে বেনাপোল দিয়ে ফেরত গণপিটুনিতে যশোরে এক ব্যক্তির মৃত্যু তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে স্বাস্থ্য সহকারীকে হেনস্তার অভিযোগ লালপুরের ৮ ইমো হ্যাকার গ্রেপ্তার জগন্নাথপুর বাজারে দোকানভিটের মালিকানা নিয়ে দুই ব্যবসায়ীর বিরোধ তুঙ্গে ঝিনাইদহে বজ্রপাত প্রতিরোধে তালবীজ রোপণ জৈন্তাপুরে দেবরের হাতে ভাবি খুন,সৎ ভাই আহত। আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে ইসলামপুরে সাজ সাজ রব বেনাপোল স্থলপথে ভারতে গেল সরকারের বিশেষ অনুমতির ২৩ মেট্রিক টন ইলিশ নাটোরে স্ত্রীকে কুপিয়ে স্বামীর বিষপানে আত্মহত্যা কুয়াকাটা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন সংঘর্ষে আহত বৃদ্ধের অবস্থা আশঙ্কাজনক জৈন্তাপুরে মুজিব নগরের ঘরের বারান্ধা ভেঙ্গে দিয়েছে দুস্কৃতিকারিরা বেনাপোল বন্দরের পন্যবহন বন্ধ চলচ্ছে পরিবহনের কর্মবিরতি

প্রোগ্রাম প্রেস রিলিজ ০৭ জুলাই, বুধবার ২০২১ (সংক্রামক ও অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে প্রয়োজন হেল্থ প্রমোশন ফাউন্ডেশন)

Spread the love
০৭ জুলাই, বুধবার ২০২১

বরাবর
বার্তা সম্পাদক

সংক্রামক ও অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে প্রয়োজন হেল্থ প্রমোশন ফাউন্ডেশন

‘স্বাস্থ্য’ বৃহত্তর একটি বিষয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র মতে, স্বাস্থ্যর সাথে শুধুমাত্র রোগের অনুপস্থিতি নয়, দৈহিক, মানসিক এবং সামাজিক বিষয়ের সুস্থতা সম্পৃক্ত। আমাদের দৈহিক, মানসিক এবং সামাজিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। স্বাস্থ্য শুধু চিকিৎসার বিষয় নয়, উন্নয়নের একটি নির্দেশকও বটে। এটি মানুষের শারিরীক, মানসিক, সামাজিক এমনকি অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে সম্পর্কযুক্ত। অসংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে সারা বিশ্ব বর্তমানে সোচ্চার। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে বৃদ্ধি পাচ্ছে নানা প্রকারের সংক্রামক এবং অসংক্রামক রোগ ব্যাধি। সংক্রামক রোগ প্রতিরোধে নির্দিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে কিছু সফলতা থাকলেও অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধ সারা বিশে^র জন্য এখন একটি বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। এমতাবস্থায় রোগ প্রতিরোধকে প্রাধান্য দিয়ে স্বাস্থ্য উন্নয়নে একটি হেলথ প্রমোশন ফাউন্ডেশন গঠন করা জরুরী। আজ ০৭ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, বেলা ১১:০০টায় “সংক্রামক ও অসংক্রামক রোগ প্রতিরোধে আগামী ভাবনা” শীর্ষক একটি ভার্চুয়াল টকশো এ বক্তারা এ অভিমত ব্যক্ত করেন। ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর সহকারি প্রকল্প কর্মকর্তা ফাইরুজ লাবিবার সঞ্চালনায় টকশোতে বক্তা রাখেন ডক্টরস ফর হেলথ্ এ্যান্ড এ্যানভারনমেন্ট এর প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা: মোহাম্মদ আবু সাঈদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক (অর্থনীতি বিভাগ) ড. রোমানা হক, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্স (বিআইপি) এর জেনারেল সেক্রেটারী ড. আদিল মোহাম্মদ খান, ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর পরিচালক গাউস পিয়ারী।
অধ্যাপক ডা: মোহাম্মদ আবু সাঈদ বলেন, সময়ের সাথে সাথে যথাপোযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহনের এখনই সময়, করোনা মহামারীর এই সময়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও সমন্বিত স্বাস্থ্য ব্যবস্থার প্রয়োজনীয়তা আরো ব্যাপকভাবে লক্ষ্য করা গেছে। এক সময় সংক্রামক রোগ নিয়ে মানুষ খুব চিন্তিত ছিল কিন্তু এখন অসংক্রামক রোগ সবচেয়ে বেশি চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু চিকিৎসার উপর নির্ভর করে স্বাস্থ্য সুরক্ষা করা যাবে না। সুস্থ্য থাকার জন্য প্রাণপ্রকৃতি কথা সবার ভাবনায় রাখতে হবে। প্রকৃতি ধ্বংস করে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সম্ভব নয়। এজন্য আচরণগত পরিবর্তনও খুব জরুরী।
ড. রোমানা হক বলেন, বিলাসী এবং স্বাস্থ্যহানিকর পণ্য যেমন- টিভি, মোবাইল, ফ্রিজ, নিজস্ব গাড়ি, তামাক, পলিথিন ইত্যাদির উপর সারচার্জ আরোপ এবং কর বৃদ্ধি করে ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এসকল খাত থেকে অর্জিত অর্থ হেল্থ প্রমোশন ফাউন্ডেশন গঠন করে পরিকল্পিতভাবে স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাজে লাগানো যেতে পারে। স্থানীয় পর্যায়ে সমন্বয়ের জন্য কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোকে এক্ষেত্রে সম্পৃক্ত করা যেতে পারে।
ড. আদিল মোহাম্মদ খান বলেন, পরিকল্পনার সাথে স্বাস্থ্য ও পরিবেশের নিবীড় সম্পর্ক রয়েছে। অতি দ্রুত ও অপরিকল্পিত নগরায়নের ফলে দেশে যানজট, জলাবদ্ধতা, পরিবেশ দূষণ, বায়ু দূষণ, শব্দ দূষণ, সবুজ প্রকৃতি ধংস, জলাশয় দূষণ এবং নগর এলাকায় তাপমাত্রা বৃদ্ধির মতো নানাবিধ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে নগরবাসীর শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকি ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। করোনাকালিন সময় মানুষ বাহিরে যেতে পারছে না। ফলে সকল বয়সী মানুষের উপর মানসিক চাপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। শুধু চিকিৎসাকেন্দ্র নয় মানসিক স্বাস্থ্যের সাথে খেলার মাঠ, পার্ক, গনপরিসর, পথচারীবান্ধব পরিবেশও সংযুক্ত। এ অবস্থায় অল্প পরিসরে হলেও মানুষের প্রকৃতির সংস্পর্সে থাকার সুযোগ থাকা প্রয়োজন।
ওয়ার্ক ফর এ বেটার বাংলাদেশ ট্রাস্ট এর পরিচালক গাউস পিয়ারী বলেন, অসুস্থ্যদের চিকিৎসায়, ডাক্তার ওষুধ, হাসপাতাল অবশ্যই প্রয়োজন তবে মানুষের জন্য সুস্থ্য থাকার জন্য সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি করা অধিক জরুরী। শারিরীক ও মানসিকভাবে সুস্থ্য থাকতে হলে নিরাপদ খাবার, ব্যয়াম ও শরীর চর্চার সুযোগ ও সঠিক জীবনাচরনের মধ্যে থাকা দরকার। রাস্ট্রের জনগনের কল্যাণে এ বিষয়গুলোর দিকে  সরকারের আরো অধিক নজর দেওয়া দরকার।

ধন্যবাদসহ
সৈয়দ সাইফুল আলম
মিডিয়া এডভোকেসি অফিসার

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ