,

শিরোনাম
দেশের জনগণ রাস্তায় নামলে আওয়ামী লীগকে খুঁজে পাওয়া যাবে না চিলমারীতে শ্রেষ্ঠ প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন বৈষম্য শোষণ বঞ্চনার বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন কবি নজরুল……জাতীয় স্মরণমঞ্চ গোপালগঞ্জে বাল্যবিবাহ নিরোধ বিষয়ক অরিয়েন্টেশন কাজী ওহিদ হিলিতে ৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে কলা রাজধানীর কোতয়ালী এলাকা হতে নবাবগঞ্জের চাঞ্চল্যকর ভাইয়ের হাতে ভাই হত্যা মামলার প্রধান আসামী জাহাঙ্গীর কবিরাজ’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী এলাকা হতে ২২ কেজি গাঁজাসহ ০৪ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব; মাদক পরিবহনে ব্যবহৃত গাড়ি জব্দ। শৈলকুপায় চুলার আগুনে পুড়ে ছাই ৮টি বসতঘর, ক্ষয়ক্ষতি ৭০ লাখ টাকা বেনাপোল ইমিগ্রেশনে পাসপোর্ট যাত্রীর বায়ু পথে স্বর্ণবার উদ্ধার। আটক ২ পাসপোর্ট যাত্রী। আদমদীঘিতে দুর্বৃত্তদের হামলার শিকার ছাত্রলীগ নেতা শাহীন সুষ্ঠু তদন্ত চায়; জানতে চায় হামলাকারী কারা?
পাবর্তীপুর মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পে বিস্ফোরকের অভাবে পাথর উত্তলন বন্ধ।

পাবর্তীপুর মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পে বিস্ফোরকের অভাবে পাথর উত্তলন বন্ধ।

আমজাদ হোসেন,পাবর্তীপুর (দিনাজপুর) 
পাবর্তীপুর মধ্যপাড়া  ভূগর্ভস্থ কঠিন শিলা প্রকল্পে পাথর উত্তোলন বন্ধ। খনির ভুগর্ভে পাথর ভাঙার বিস্ফোরক ( এক্সপ্লোসিভ )’র অভাবে গত দুই মাসের মধ্যে দ্বিতীয় দফায় পাথর উত্তোলন বন্ধ করে দিয়েছেন প্রকল্প ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসি। আপাতত উৎপাদন শুরুর কোন নিশ্চিয়তা নেই। গত ৭মে (বৃহস্পতিবার) ছুটি শেষে উত্তলনের  শুরু করার মত প্রয়োজনীয় বিস্ফোরক,  ডেটোনেটর , কট , জেলসহ অন্যান্য বৈদ্যুতিক মালামাল সন্কটের অভাবে অনির্দিষ্ট কালের জন্য শ্রমিক – কর্মচারিদের জিটিসি  শ্রমিকদের ছুটি দিয়ে পাথর উত্তোলন বন্ধ করা হয় । এর আগে এ্যামোনিয়াম নাইট্রেটের সংকটে পড়ে গত ১২ মার্চ উৎপাদন বন্ধ হয়ে ২৭ মার্চ চালু হয়েছিল। বিস্ফোরক  মালামাল  ক্রয়ে ৬ থেকে ৭ কোটি টাকার এ্যামোনিয়াম নাইট্রেট ও বিস্ফোরক প্রয়োজন হয় । এর পুরোটাই বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয় । নাম প্রকাশে অনইচ্ছুক দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা বলেন, বিস্ফোরক আমদানীর জন্য তিনদফা দরপত্র আহবান করেও কেউ দরপত্র শিডিউল  ক্রয় পর্যন্ত করেনি । তাছাড়া সরকারি নানা নিয়ম মেনে বিস্ফোরক আমদানি করতে দীর্ঘ প্রক্রিয়া লেগে যায়, পেট্রোবাংলার সহায়তায় ভারত থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় বিস্ফোরক ক্রয়ের চেষ্টা চলছে বলে ওই কর্মকর্তা জানান । এদিকে , বার বার উৎপাদন বন্ধ হওয়ায় জিটিসি লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী পাথর উৎপাদন করতে ব্যর্থ হবে এবং বড় ধরণের লোকসানের মুখে পড়বে । অপরদিকে সরকার প্রতিমাসে মোটা অঙ্কের রাজস্ব হারাতে বসবে। ২০২০ইং প্রায় ২০০ কোটি টাকা লোকশান গুনতে হয়েছিল,  এক সুত্রের দাবি আবার লোকসানের মুখে পড়তে পারে!এ বিষয়ে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের  এমজিএমসিএল  ব্যবস্থাপনা পরিচালক এডিএম ফরিদুজ্জামানের সঙ্গে কোনো ভাবে যোগাযোগ সম্ভব হয়নি। এমজিএমসিএল,র মহাব্যবস্থাপক ( মাইন অপারেশন ) পিনাক ইকবাল পাথর উৎপাদন বন্ধ থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান , খনির পাথর কাটার কাজে ব্যবহৃত বিস্ফোরক বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়, করোনানা কারণে নিদৃষ্ট সময়ে আমদানি করা যায়নি । তবে খুব শিগগির তা নিয়ে আসা সম্ভব বলে তিনি আশা ব্যাক্ত করেন।
Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ