May 9, 2021, 11:54 pm

শিরোনাম :
যাত্রাবাড়ী ও দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকায় পৃথক অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ ০৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার রাবি ভিসির ‘মানবিক নিয়োগ’ টিকবে কি? ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫৬ মৃত্যু দণ্ডিত হওয়ায় বিদেশে চিকিৎসা নিতে যেতে পারবেন না খালেদা নতুন নিয়োগপ্রাপ্তদের যোগদান স্থগিত করলো রাবি প্রশাসন ফেরি বন্ধ থাকলেও ঘাটে বাড়িফেরা মানুষের ভিড় যশোরে দু’জনের শরীরে করোনার ইন্ডিয়ান ভ্যারিয়েন্ট ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু অতিদরিদ্রদের ৪০ দিনের কর্মসূচির নামে কোটি টাকা লুটপাটের পায়তারা কিটের মূল্য কমলেও কমেনি বেসরকারি ল্যাবে করোনা পরীক্ষার ফি খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে মতামত কাল: আইনমন্ত্রী ভারতে একদিনে ৪ হাজারের বেশি মৃত্যুর নতুন রেকর্ড শ্রীমঙ্গলে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার ভারতীয় চশমা—সানগ্লাস আটক চীনা রকেটের ধ্বংসাবশেষ এ সপ্তাহেই আছড়ে পড়বে পৃথিবীতে ইসলামের নামে সহিংসতায় জড়িতরা অমানুষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেনা প্রত্যাবর্তনে আফগানিস্তানে যুদ্ধবিমান পাঠাবে আমেরিকা আইপিএল স্থগিতে ক্ষতি ২৮৮১ কোটি টাকা ঈদের আগে অস্থির নিত্যপণ্যের বাজার জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ সভাপতিকে প্রাণ নাশের হুমকি জগন্নাথপুরে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা পটুয়াখালীতে একাধিক চুরি, ডাকাতি ও ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার

নাম বিভ্রাটে একজনের কারাভোগ করছেন অন্যজন

Spread the love

ডিটেকটিভ ডেস্কঃঃ

সাজাপ্রাপ্ত আসামির নামের একাংশ ও স্বামীর নামের মিল থাকায় বিনা দোষে দেড় বছর ধরে চট্টগ্রাম কারাগারে সাজা খাটছেন হাসিনা বেগম নামে এক নারী। কক্সবাজারের টেকনাফ পৌর এলাকার হামিদ হোসেনের স্ত্রী হাছিনা বেগমকে ২০১৯ সালের ২৬ ডিসেম্বর থানায় নিয়ে যায় টেকনাফ থানা পুলিশ।

পরদিন তাকে আদালতে চালান দেয়া হয়। এরপর থেকে সাজা খাটছেন হাছিনা বেগম। কবে,সম্প্রতি এ ঘটনাটি সামনে আসায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের রেজিস্ট্রারকে বিষয়টি পরীক্ষা করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছে আদালত।

২০১৭ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামের কর্ণফুলী এলাকা থেকে ২ হাজার ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে যান একই এলাকার হামিদ হোসেনের স্ত্রী হাসিনা আক্তার। পরে হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে পলাতক তিনি।

২০১৯ সালের পয়লা জুলাই হাছিনা আক্তারকে ৬ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। তাদের স্বামীর নাম ও নিজের নামের একাংশের সাথে মিল থাকায় গ্রেপ্তার হন হাছিনা বেগম।

বর্তমানে সাজা খাটা হাসিনা বেগম ও হাসিনা আক্তার একজন নয় বলে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ।

এবিষয়ে মামলা পরিচালনাকারী চট্টগ্রাম জজ কোর্টের আইনজীবী গোলাম মাওলা মুরাদ জানান, ভুক্তভোগীর এবং তার স্বামীর নামের একাংম মিল থাকা পুলিশ তাকে আটক করে। তবে, এখন মামলা পরিচালনা করতে গিয়ে জানা যাচ্ছে এই হাছিনা বেগম তার গ্রাম বা এলাকার বাইরে কখনো আসেননি। এমনকি সে কখনো টেকনাফ বা কক্সবাজার জেলাতেও যাননি।

এদিকে শুধু নাম বিভ্রাটে নিরপরাধ মানুষের কারাবরণ বিষয়টিকে পুলিশের চরম গাফিলতি হিসেবে দেখছেন বিশিষ্টজনরা।

বিষয়টি নজরে আসায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের রেজিস্ট্রারকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছে আদালত। আর নামের মিল দেখে নিরাপরাধ ব্যক্তির জেল খাটাকে নিন্দনীয় বলছেন বিশিষ্টজনরা।

 
//ইয়াসিন//

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ