May 9, 2021, 10:47 pm

শিরোনাম :
যাত্রাবাড়ী ও দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জ এলাকায় পৃথক অভিযানে গাঁজা ও ইয়াবাসহ ০৩ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার রাবি ভিসির ‘মানবিক নিয়োগ’ টিকবে কি? ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫৬ মৃত্যু দণ্ডিত হওয়ায় বিদেশে চিকিৎসা নিতে যেতে পারবেন না খালেদা নতুন নিয়োগপ্রাপ্তদের যোগদান স্থগিত করলো রাবি প্রশাসন ফেরি বন্ধ থাকলেও ঘাটে বাড়িফেরা মানুষের ভিড় যশোরে দু’জনের শরীরে করোনার ইন্ডিয়ান ভ্যারিয়েন্ট ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু অতিদরিদ্রদের ৪০ দিনের কর্মসূচির নামে কোটি টাকা লুটপাটের পায়তারা কিটের মূল্য কমলেও কমেনি বেসরকারি ল্যাবে করোনা পরীক্ষার ফি খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে মতামত কাল: আইনমন্ত্রী ভারতে একদিনে ৪ হাজারের বেশি মৃত্যুর নতুন রেকর্ড শ্রীমঙ্গলে ১ কোটি ২৫ লাখ টাকার ভারতীয় চশমা—সানগ্লাস আটক চীনা রকেটের ধ্বংসাবশেষ এ সপ্তাহেই আছড়ে পড়বে পৃথিবীতে ইসলামের নামে সহিংসতায় জড়িতরা অমানুষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সেনা প্রত্যাবর্তনে আফগানিস্তানে যুদ্ধবিমান পাঠাবে আমেরিকা আইপিএল স্থগিতে ক্ষতি ২৮৮১ কোটি টাকা ঈদের আগে অস্থির নিত্যপণ্যের বাজার জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ সভাপতিকে প্রাণ নাশের হুমকি জগন্নাথপুরে কলেজ ছাত্রীর আত্মহত্যা পটুয়াখালীতে একাধিক চুরি, ডাকাতি ও ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার

দ্বৈব নির্দেশে সুন্দরীমালাকে কিনলেন লালমনিরহাটের দুলাল

Spread the love
মৃনাল কান্তি রায় সরকার, লালমনিরহাটঃঃ
ব্যক্তিগত উদ্যোগে হাতি কিনে পালন করার ঘটনা বিরল হলেও সেটি করেছেন লালমনিরহাট সদর উপজেলার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের দেউপাড়া নিবাসী দুলাল চন্দ্র রায়।
বিভিন্ন ঘটনা ও এলাকাবাসীসূত্রে জানা যায়, দুলাল চন্দ্র রায়ের স্ত্রী তুলসী রানী খুবই ধর্মভীরু প্রকৃতির। বিয়ের পর তাদের দু’টি সন্তান জন্মানোর পর থেকেই তাঁর উপর বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন দেব-দেবী ভর করা এবং বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দেয়া শুরু করে। সেই দিকনির্দেশনা মোতাবেক তিনি বিভিন্ন রোগী বা সেবাগ্রহীতার সমস্যার সমাধান দিতেন। অনেকে দেব-দেবী প্রদত্ত পরামর্শে তুলসী রানীর দেয়া তথ্যে রোগমুক্তি বা বিভিন্ন সমস্যার সমাধানও পেতেন। দীর্ঘদিন যাবত এভাবে চলে আসছিলো। এখন দেব-দেবীর দৈব নির্দেশনা যে তাদেরকে বিভিন্ন প্রজাতির জন্তু কিনে বাড়িতে পালন করতে হবে। এই নির্দেশনা অনুসারে ইতিমধ্যে তিনি ঘোড়া, খঁড়গোশ, রাজহাঁস প্রভৃতি কিনে বাড়িতে পালন করছেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৪ই সেপ্টেম্বর খুলনা থেকে সুন্দরীমালা নামক হাতিটি ক্রয় করে নিয়ে আসেন দুলাল চন্দ্র রায়।
উক্ত এলাকার বাসিন্দা পলাশ চন্দ্র রায় দেবসিংহ বলেন, “মোটামুটি সব ধরনের দেব-দেবী’র স্থান ওনাদের বাড়িতে রয়েছে। আর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এখানে এসে মানত ও পুঁজো করে যায়। অনেকের মনোবাসনা পূর্ণ হওয়ায় নিজ উদ্যোগে কয়েকটি  মন্দিরও বানিয়ে দিয়েছেন।”
হাতির মালিক দুলাল চন্দ্র রায় বলেন, “দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর ধরে বিভিন্ন দেব-দেবী আমার স্ত্রীর উপর ভর করা শুরু করে। প্রথমদিকে আমি এগুলো বিশ্বাস করতাম না। কিন্তু একদিন ঘটনাচক্রে দেবীমূর্তির আবির্ভাব আমার স্ত্রীর মধ্যে দৃশ্যমান হওয়ায় আমি সেদিন থেকে বিশ্বাস করতে বাধ্য হয়েছি।”
তিনি আরও বলেন, ” ঠাকুরের নির্দেশ পালন করার জন্য আমার পৈতৃক সম্পত্তি বিক্রির ১৬ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা দিয়ে হাতিটি কিনে এনেছি।”
সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী দুলাল চন্দ্র রায়ের বাড়িতে হাতি দেখার জন্য বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত দর্শনার্থীদের ভীড় লেগেই আছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দর্শনার্থীরা এসে হাতি দেখছেন।
Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ