,

কুড়িগ্রামে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বেড সংখ্যার ৫ গুণ রোগী

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

 

 

উত্তরের সীমান্ত ঘেঁষে জেলা কুড়িগ্রামে শীতের তীব্রতার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। শয্যা সংকটে ওয়ার্ডের মেঝেতে বিছানা করে চিকিৎসা নিচ্ছেন রোগীরা। এমনকি মেঝেতে একই বেডে সর্বোচ্চ ৩ জন রোগী গাদাগাদি করে বসে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

 

বুধবার (১২জানুয়া‌রি) দুপুরে কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে গিয়ে এ চিত্র দেখা গেছে।

 

হাসপাতালটির ডায়রিয়া ওয়ার্ডের অনুযায়ী বুধবার সকাল ৮:৩০ টা পর্যন্ত মোট ৫৬ জন রোগী ভর্তি আছেন। এর মধ্যে শিশুর সংখ্যা ৪৩ জন। যা মোট রোগীর প্রায় ৭৭ শতাংশ। এছাড়াও একই দিনের সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত ১৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

 

পাশাপাশি গত এক সপ্তাহের (৫ থেকে ১২ জানুয়ারি) পর্যন্ত ডায়রিয়া ওয়ার্ডে দৈনিক গড়ে ৪৭ জন রোগী চিকিসাধীন অবস্থায় ছিলেন। যা ওই ওয়ার্ডের শয্যা সংখ্যার ৪ গুণ বেশি।

 

দুপুরে হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে গেলে কর্তব্যরত সিনিয়র স্টাফ নার্স আসমা খাতুন জানান, গত কয়েকদিন ধরে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এসব রোগীর মধ্যে শিশুই বেশি। ১২ বেডের এই ডায়রিয়া ওয়ার্ডে বুধবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত ৫৬ জন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হন।

এখনও রোগী আসতেছে। তাই সবাইকে বেডে যায়গা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

 

ডায়রিয়া ওয়ার্ডের মেঝেতে একই বিছানায় যায়গা হয়েছে আদিত্য (৮ মাস), আরাফাত (১১ মাস), রিয়া মনি (১০ মাস) নামের ৩ শিশুর। তারা বিভিন্ন যায়গা থেকে আজকে সকালে ভর্তি হন বলে জানিয়েছে রোগীর সাথে আসা অবিভাবকেরা। গাদাগাদি করে থাকায় রোগীর স্বজনদেরও কষ্ট হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তারা।

 

অপরদিকে কুড়িগ্রাম সদরের ভোগডাঙা ইউনিয়ন থেকে আসা রাফিয়া মনি (১৭ মাস) কে ভর্তি করানো হয় গতকাল।  মেঝেতে কোনমতে বিছানা করে শিশুকে কোলে নিয়ে রাফিয়া মনির মা মোছা ছালেহা বেগম বলেন, হাসপাতালে এত ভীড় থাকলে আমি নিজেও অসুস্থ হবো। তারপরেও হাসপাতালে এসেছি আমার সন্তানের চিকিৎসার জন্য। এমন পরিস্থিতিতে চিকিৎসার মান নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ না করলেও কোন অভিযোগ করেননি তিনি।

 

কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. পুলক কুমার সরকার জানান, রোগীর সংখ্যার তুলনায় শয্যা এবং ডাক্তার পর্যাপ্ত  না থাকায় চিকিৎসা সেবা দিতে কিছুটা হিমশিম খেতে হচ্ছে। তবে সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত ৬০ জন নার্স দিয়ে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা দেয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে।

Facebook Comments Box
Share Button

      এ ক্যাটাগরীর আরও সংবাদ